• সোমবার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১১ ১৪২৯

  • || ০১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

আজকের সাতক্ষীরা

গুলি বোমা দিয়ে অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে কট

আজকের সাতক্ষীরা

প্রকাশিত: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২  

সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার কাদাকাটিতে অন্যের বাড়িতে রাইফেলের গুলি ও বোমা রেখে ফাঁসাতে গিয়ে মিকাইল নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাত ৩টার দিকে একই গ্রামের মফিজুল ইসলামের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এব্যাপারে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পুলিশ বাদী হয়ে ওইদিন রাতে থানায় বিস্ফোরক ও অস্ত্র আইনে একটি মামলা করেছে।

কাদাকাটি গ্রামের আব্দুল হাকিম সরদারের ছেলে মফিজুল সরদারের স্ত্রী পারভিন আক্তার জানান, বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে হঠাৎ ৫ থেকে ৭জন পুলিশ তাদের বাড়িতে আসে। পুলিশের সাথে স্থানীয় মৃত আব্দুর রউফ সরদারের ছেলে ইসরাফিল সরদার ও মইনুর রহমান সরদারের ছেলে মিকাইল সরদার উপস্থিত ছিল।

এসময় পুলিশ আমাদের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে প্রথমে কোন কিছুই না পেয়ে আমাদেরকে জানায় যে, আমাদের বাড়িতে নাকি বোমা রাখা রয়েছে, এমন তথ্য তাদের কাছে আছে। বিষয়টি শুনে আমরা হতভম্ব হয়ে যাই। অনেক খোঁজাখুঁজির পরেও যখন কোন কিছুই পাওয়া যায়নি, তখন থানা পুলিশ মিকাইল ও ইসরাফিলকে বাড়ির ভিতরে ডেকে আনেন। এ সময় তাদেরকে চাপ প্রয়োগ করলে তারা নিজেরাই আগে থেকে লুকিয়ে রাখা বোমা ও রাইফেলের গুলি ধানের গলার তলা থেকে বের করে দেয়। পুলিশ সাথে সাথে বোমা পানিতে রেখে নিস্ক্রীয় করে এবং মিকাইলকে গ্রেপ্তার করেন। এসময় মিকাইলের সাথে থাকা ইসরাফিল সরদার কৌশলে পালিয়ে যায়।

গৃহবধূ পারভিন আক্তার আরও জানান, অভিযুক্ত মিকাইল ও ইসরাফিলের সাথে তাদের জলমহল নিয়ে দ্বন্দ্ব আছে। কাদাকাটিতে সাড়ে চারশত বিঘা জলমহল তার স্বামীর বড় ভাই ইজারা পেয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী সকলেই হারির টাকা পরিশোধ করলেও মিকাইল ও ইসরাফিল তাদের হারির টাকা না দিয়ে বিভিন্ন তালবাহানা শুরু করে। এব্যাপারে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে ১৯/২০২২ নং মামলা করা হলে পিবিআই তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বিবাদী মিকাইল ও ইসরাফিল মামলার বাদীকে (মফিজুল) জব্দ করতে মিথ্যে মামলায় ফাঁসাতে তাদের বাড়িতে অবৈধ গুলি ও বোমা রেখে দিয়ে পুলিশকে খবর দেয়। যা পুলিশ ষড়যন্ত্রকারীদের মাধ্যমেই উদ্ধার এবং প্রকৃত অপরাধীকে গ্রেপ্তার করেছেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য বিপ্লব কুমার রায় জানান, রাতে পুলিশ এসে মফিজুলের বাড়িতে তল্লাশি করে প্রথমে কিছুই পায়নি। পরে স্থানীয় মিকাইল ও ইসরাফিল এর মাধ্যমে বোমা ও রাইফেলের গুলি উদ্ধার করে থানা পুলিশ।

আশাশুনি থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মমিনুল ইসলাম বলেন, প্রতিপক্ষকে মিথ্যে মামলায় ফাঁসাতে এ ঘটনা সাজানো হয়েছিলো। পুলিশ প্রতারক মিকাইল সরদারকে গ্রেপ্তার করেছে এবং অপর আসামী ইসরাফিল ও অজ্ঞাতরা পলাতক রয়েছে। তাদরেকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

আজকের সাতক্ষীরা
আজকের সাতক্ষীরা