• শুক্রবার   ১২ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৮ ১৪২৯

  • || ১৪ মুহররম ১৪৪৪

আজকের সাতক্ষীরা

তরুণরা আমাদের সাম্প্রতিক উন্নয়নের সম্মুখ সারির যোদ্ধা

আজকের সাতক্ষীরা

প্রকাশিত: ৩০ ডিসেম্বর ২০২১  

তরুণদের বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের সম্মুখ সারির শক্তি আখ্যা দিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আশা প্রকাশ করে বলেছেন, বাংলাদেশের যুবসমাজই উন্নত ভবিষ্যৎ নিয়ে আসবে।

বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) ঢাকা ওআইসি ইয়ুথ ক্যাপিটালের সমাপনী অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি এ আশা ব্যক্ত করেন। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ঢাকার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এই অনুষ্ঠানে বঙ্গভবনের গ্যালারি হল থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন মো. আবদুল হামিদ।

২০১৫ সাল থেকে প্রতিবছর ওআইসি সদস্যভুক্ত দেশগুলোকে ‘ওআইসি ইয়ুথ ক্যাপিটাল’ এর স্বীকৃতি দিয়ে আসছে ইসলামিক কো-অপারেশন ইয়ুথ ফোরাম (আইসিওয়াইএফ)। ঢাকা ওআইসি ইয়ুথ ক্যাপিটাল-২০২০ উপলক্ষে আয়োজন করা বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে সমাপনী অনুষ্ঠানে পুরস্কার দেওয়া হয়।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বাংলাদেশ গত এক দশক ধরে উন্নয়নের পথে হাঁটছে। আমাদের জাতির এই উত্থান অন্যদের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে আছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই যাত্রায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিনি তার পিতার মতোই তরুণদের অনুপ্রাণিত করে চলেছেন।’

আবদুল হামিদ বলেন, ‘আমি এটা বলতে পেরে গর্বিত যে, তরুণরা আমাদের সাম্প্রতিক উন্নয়নের সম্মুখ সারির যোদ্ধা। বাংলাদেশে তরুণদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে। বিশ্বের সর্বোচ্চ জনসংখ্যাগত লভ্যাংশের মধ্যে রয়েছে। এটি আমাদের আশাবাদী এবং আত্মবিশ্বাসী করছে যে, এই তরুণরাই একটি উন্নত ভবিষ্যৎ নিয়ে আসবে।’

অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিবুর রহমানের তরুণ বয়সের রাজনৈতিক সংগ্রামের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, তার (রাষ্ট্রপতি) তরুণ বয়সে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বের উপস্থিতির জন্য তিনি গর্বিত।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আমার প্রজন্মের তরুণদের মতো পরবর্তী প্রজন্মকেও অনুপ্রাণিত করেছিলেন।’

আবদুল হামিদ বলেন, ‘বিশ্ব দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে এবং তরুণরা দ্রুত মানিয়ে নিতে পারে, সেজন্য তারাই অগ্রগতির সূচনাকারী। তারুণ্যের এই উদযাপন আমাকে আশা দিয়েছে— বিশ্বের ভবিষ্যৎ ভালো এবং এ পথে যে চ্যালেঞ্জই আসুক না কেন, যুবকরা সাহসের সঙ্গে এর মোকাবিলা করবে। শক্তভাবে লড়াই করবে এবং শেষ পর্যন্ত জয়ী হবে। আমি সব সময় লক্ষ্য করেছি, তারুণ্যের শক্তির জয় সবসময়ই হয়।’

ঢাকা ওআইসি ইয়ুথ ক্যাপিটাল বিশ্ব ও বাংলাদেশের তরুণদের জন্য একটি ‘দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা’ মন্তব্য করে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, তরুণরা নিজেদের মতামত বিনিময় এবং কর্মসূচিতে অংশ নেওয়ার মাধ্যমে একত্রিত হয়েছে। এর ফলে তরুণরা একটি নেটওয়ার্ক গড়ে তুলবে এবং সহযোগিতা ও সহাবস্থানের একটি উন্নত বিশ্ব গড়ে তুলবে।’

তিনি বলেন, ‘‘আয়োজক দেশ হিসেবে আমরা তরুণদের একত্রে সংগঠিত করতে পেরে আনন্দিত। বাংলাদেশ সবসময় আন্তর্জাতিক বন্ধুত্ব গড়ে তোলার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে শত্রুতা নয়’ নীতিতে বিশ্বাস করি। আমি আশা করি, বিশ্বের তরুণরা একই দর্শনকে সমুন্নত রাখবে।’’

আবদুল হামিদ বলেন, ‘সংকটে যুবকরা সবসময়ই অবদান রেখেছে, ঠিক যেমনটি তারা সাম্প্রতিক মহামারি সময়ে রেখেছিল। একটি শক্তিশালী এবং উৎসাহী যুব নেটওয়ার্ক হলো একটি শক্তিশালী শক্তি, যা সব সমস্যার বিরুদ্ধে এবং সমতা ও সমৃদ্ধির জন্য স্থিতিস্থাপকতা তৈরি করে। আমি আশা করি, তরুণরা এই দর্শনকে নিজের মধ্যে ধারণ করে সমাজ ও মানবতার জন্য অবদান রাখবে।’

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন— পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, ইসলামিক কো-অপারেশন ইয়ুথ ফোরামের প্রেসিডেন্ট তাহা আইয়ান, তাতারাস্তানের মন্ত্রী তাইমুর সুলেমানভ (ভার্চুয়াল), মালদ্বীপের ইয়ুথ, স্পোর্টস অ্যান্ড কমিইউনিটি এমপাওয়ারমেন্ট মন্ত্রী আহমেদ মাহলুফ। 

আগামী বছরের জন্য তাতারাস্তানের রাজধানী কাজানকে ওআইসি ইয়ুথ ক্যাপিটাল হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ইয়ুথ ক্যাপিটালের চাবি তাতারাস্তানের যুব বিষয়কমন্ত্রী তাইমুর সুলেমানভের পক্ষে ওআইসি ইয়ুথ ফোরামের প্রেসিডেন্ট তাহা আইয়ানের হাতে হস্তান্তর করেন।

আজকের সাতক্ষীরা
আজকের সাতক্ষীরা