• রোববার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৯

  • || ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

আজকের সাতক্ষীরা

সোমবার খাগড়াছড়ির ৪২ সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

আজকের সাতক্ষীরা

প্রকাশিত: ৪ নভেম্বর ২০২২  

চলমান সড়ক উন্নয়নের ফলে ক্রমশ বদলে যাচ্ছে খাগড়াছড়ির যোগাযোগ ব্যবস্থা। এক সময় খাগড়াছড়িতে নিরবচ্ছিন্ন সড়ক যোগাযোগে বড় বাধা ছিল বেইলি সেতু (স্টিল নির্মিত সেতু)। বিভিন্ন সময় এসব বেইলি সেতু ধসে বা পাটাতন দেবে গিয়ে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যেতো। এতে ভোগান্তিতে পড়তেন লাখ লাখ মানুষ। তবে বেইলি সেতুগুলো ভেঙে সেখানে ৪২টি পাকা সেতু  নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে নিরবচ্ছিন্নভাবে এখন থেকে এইসব সড়কে যান চলাচল করতে পারবে।
আগামী সোমবার (৭ নভেম্বর) এসব নতুন সেতুর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে খাগড়াছড়ি সড়ক বিভাগের সেতুগুলো যান চলাচলের জন্য খুলে দেবেন তিনি। খাগড়াছড়ি সড়ক বিভাগ সূত্রে এতথ্য জানা গেছে।
খাগড়াছড়ির বিভিন্ন সড়কে পিসি গার্ডার সেতু, আরসিসি সেতু ও আরসিসি বক্স কালভার্ট নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় প্রায় ২৩৮ কোটি ২৪ লাখ টাকায় ৪২টি সেতু চালু করা হচ্ছে।
সূত্রে জানা যায়, খাগড়াছড়িতে ৪২টি সেতুর মধ্যে জেলা সদরে ৯টি, দীঘিনালায় ৫টি, পানছড়িতে ১০টি, মহালছড়িতে ৫টি, লক্ষ্মীছড়িতে ৪টি, মাটিরাঙ্গায় ৩টি, গুইমারায় ২টি, রামগড়ে ২টি, মানিকছড়িতে ১টি ও রাঙামাটির বাঘাইছড়ির ১টি সেতু নির্মাণ করা হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীঘিনালা-বাবুছড়া-লোগাং-পানছড়ি সড়কের লোগাং সেতুটি ১৪৩ দশমিক ৫ মিটার দৈর্ঘ্য। এটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ১১ কোটি ৭১ লাখ টাকা। এরপরের দীর্ঘতম মানিকছড়ি-লক্ষ্মীছড়ি সড়কে ১০০ মিটার ধুরুং খাল সেতু নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৯ কোটি ২৭ লাখ টাকা।
দীঘিনালা-বাবুছড়া-লোগাং-পানছড়ি সড়কে ৭৯ দশমিক ৫মিটারের পুজগাং বাজার সেতু নির্মাণে ব্যয় হয় ৭ কোটি ৩২ লাখ টাকা। মাটিরাঙ্গা উপজেলার ৩টি সেতু মাটিরাঙ্গা, তবলছড়ি তানাক্কা পাড়া সড়কের ৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের গোমতী সেতু নির্মাণে ৬ কোটি টাকা, মানিকছড়ি-লক্ষ্মীছড়ি সড়কে ৪৪ দশমিক ২ মিটার জুর্গাছড়ি সেতু নির্মাণে ৪ কোটি ৬২ লাখ টাকা, হেঁয়াকো-রামগড়-জালিয়া পাড়া সড়কে সোনাইপুল সেতু নির্মাণে ৫ কোটি ২৮ লাখ টাকা, দীঘিনালা-বাবুছড়া-লোগাং-পানছড়ি সড়কে ৪৪ মিটার দৈর্ঘ্যের পাবলাখালী সেতু নির্মাণে ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা ব্যয় হয়।
একই সড়কে ৪৪ মিটার দৈর্ঘ্যের বাঘাইছড়ি সেতু নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা, ৪০ মিটার দৈর্ঘ্যের বাবুরোপাড়া সেতু নির্মাণে ব্যয় ৪ কোটি ৪৪ লাখ টাকা, খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়কে ৩৭ মিটার দৈর্ঘ্যের পেরাছড়া ব্রিজ নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। এছাড়া ৩৭ মিটার দৈর্ঘ্যের গাছবান ব্রিজ নির্মাণে ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা, ৩৭ মিটার দৈর্ঘ্যের কুকিছড়া ব্রিজ নির্মাণে ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা, ৩৭ মিটার দৈর্ঘ্যের কুরাদিয়াছড়া ব্রিজ নির্মাণে ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা এবং একই দৈর্ঘ্যের লতিবানছড়া ব্রিজ নির্মাণে ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে।
এছাড়া ৩৭ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ হচ্ছে হাটহাজারি-মাটিরাঙ্গা সড়কের খাগড়াপুর ব্রিজ, রাঙামাটি-মহালছড়ি সড়কে ঠাকুরছড়া ব্রিজ, মানিকছড়ি-লক্ষ্মীছড়ির হাতিছড়া সেতু, জালিয়াপাড়া-মহালছড়ি সড়কের সিন্দুকছড়ি সেতু ও পঙ্খিমুড়া সেতু।
দীঘিনালা-বাবুছড়া-লোগাং সড়কের দেওয়ানছড়া সেতু নির্মাণ হচ্ছে ৪ কোটি ৪১ লাখ টাকায়, বাঘাইহাট-মারিশ্যা সড়কের পতেঙ্গাছড়া সেতু নির্মাণ হয়েছে ৫ কোটি ১৫ লাখ টাকায়, একই সড়কের নাকাপা সেতু নির্মিত হয়েছে ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকায়, দীঘিনালা-বাবুছড়া সড়কের জারুলছড়ি সেতু নির্মিত হয়েছে ৪ কোটি ২৬ লাখ টাকায়, মহালছড়ির চোংড়াছড়ি সেতু নির্মাণ হয়েছে ৩ কোটি ৮২ লাখ টাকায়, একই সড়কে মুসলিম পাড়া ব্রিজ নির্মাণ হয়েছে ৩ কোটি ৮২ লাখ টাকায়।
হেঁয়াকো-রামগড়-জালিয়াপাড়া সড়কে ৩১ মিটার দৈর্ঘ্যের পাতাছড়া সেতু নির্মাণ হয়েছে ৩ কোটি ৮২ লাখ টাকায়, জালিয়াপাড়া-সিন্দুকছড়ি সড়কে ২৮ মিটার দৈর্ঘ্যের ধুমনীঘাট সেতু ও যৌথখামার সেতু নির্মিত হয়েছে ৩ কোটি ৪৫ লাখ টাকা করে ব্যয়।
দীঘিনালা-বাবুছড়া-লোগাং সগকে ২৮ মিটার দৈর্ঘ্যের বড়পেরা সেতু নির্মিত হয়েছে ৩ কোটি ৬৮ লাখ টাকায়, খাগড়াছড়ি পানছড়ি সড়কে ২৫ মুটচর দৈর্ঘ্যের ছোটনালা ব্রিজ নির্মিত হয়েছে ৩ কোটি ৮ লাখ টাকায়। লক্ষ্মীছড়ি সড়কে ২৫ মিটার দৈর্ঘ্যের মগাইছড়ি সেতু নির্মিত হয়েছে ৩ কোটি ৬৬ লাখ টাকায়, পানছড়ি সড়কে ২৫ মিটার দৈর্ঘ্যের লোগাং বাজার সেতু নির্মিত হয়েছে ৪ কোটি ২৩ লাখ টাকায়, একই দৈর্ঘ্যের দীঘিনালার বুজ্যেনাল সেতু নির্মিত হয়েছে ৩ কোটি ৫৭ লাখ টাকায়, মগমারাছড়া সেতু নির্মিত হয়ছে ৪ কোটি ৯ লাখ টাকায়।
খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়কের ২২ মিটার দৈর্ঘ্যের পাকুজ্জাছড়ি ব্রিজ নির্মিত হয়েছে ২ কোটি ৭৫ লাখ টাকায়, মানিকছড়ি সড়কে ২২ মিটার দৈর্ঘ্যের দুল্লাতলী সেতু নির্মিত হয়েছে ২ কোটি ৭২ লাখ টাকায়, পানছড়ি সড়কের ১৯ মিটার দৈর্ঘ্যের ভাইবোনছড়া ব্রিজ ও কলাবাগান ব্রিজটি নির্মিত হয়েছে ২ কোটি ৩৫ লাখ টাকা করে ব্যয়ে। মাটিরাঙ্গার তবলছড়ি সেতু ও তাইন্দং সেতু নির্মিত হয়েছে ১ কোটি ৯৯ লাখ টাকা করে ব্যয়ে।
খাগড়াছড়ি-দীঘিনালা সড়কে ১৬ মিটার দৈর্ঘ্যের কৃষি গবেষণা সেতু নির্মিত হয়েছে ৩ কোটি ৭৬ লাখ টাকায়, দীঘিনালা সড়কের হাতিমারাছড়া সেতু নির্মিত হয়েছে ৩ কোটি ৪১ লাখ টাকায়। ইতোমধ্যে সবগুলো সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে, অপেক্ষা শুধু উদ্বোধনের।
খাগড়াছড়ি সড়ক বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী সবুজ চাকমা রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি ব্রিজে প্রায় সময় দুর্ঘটনা ঘটতো। বেইলি ব্রিজের খাগড়াছড়িতে নির্মাণ করা হয়েছে ৪২ টি সেতু। সেতু নির্মাণে বদলে যাবে পার্বত্য অঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা। জেলা সড়কের সাথে উপজেলা সড়ক ও আঞ্চলিক মহাসড়কে যোগাযোগ ব্যবস্থায় আমূল পরির্বতন আসবে এই সেতু ব্যবহারের মাধ্যমে।’
তিনি আরও বলেন, ‘পাহাড়ের উৎপাদিত কৃষি পণ্য সড়ক পথে যথাসময়ে বাজারে নিয়ে বিক্রি করতে পারবেন কৃষকরা। ফলে কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য দাম পাবেন।’

আজকের সাতক্ষীরা
আজকের সাতক্ষীরা