• রোববার   ০৭ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৩ ১৪২৭

  • || ১৫ শাওয়াল ১৪৪১

আজকের সাতক্ষীরা
১২০৫

এগিয়ে চলছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্মাণকাজ

আজকের সাতক্ষীরা

প্রকাশিত: ৬ এপ্রিল ২০২০  

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে মহামারি করোনাভাইরাস। এর মধ্যেও ঝুঁকি নিয়ে পুরোদমে এগিয়ে চলছে পাবনার পাকশীতে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্মাণকাজ।

২০২৩ সালে প্রকল্পটি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনা রয়েছে। প্রকল্প থেকে সময়মত বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যে রাশিয়া, চীন, ইরান, ভারত বেলারুসসহ আটটি দেশের প্রায় দুই হাজার মানুষ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সঙ্গে রয়েছে বাংলাদেশিরাও।

রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবর জানান, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প দেশের অগ্রাধিকারভুক্ত একটি প্রকল্প। দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতেও রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের কাজ আগের মতোই চলছে।করোনাভাইরাস যাতে এই প্রকল্পের কাজে কোনো বাধা হতে না পারে, সেজন্য সরকারি নির্দেশনা মেনে প্রকল্পের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে।

শৌকত আকবর বলেন, ‘প্রকল্প সাইটের সব প্রবেশ পয়েন্টসহ অফিস বিল্ডিং ও ক্যান্টিনে প্রবেশকালে কর্মীদের তাপমাত্রা স্ক্যান করা হচ্ছে। সাইটের সব স্থানে প্রতিদিনই পরিচালিত হচ্ছে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম। দেশি-বিদেশি সব কর্মীকে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজেশন সরবরাহ করে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করা হচ্ছে। চুক্তি অনুয়ায়ী নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে সব ধরণের স্বাস্থ্য নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নিশ্চিত করে কাজ করা হচ্ছে।’

প্রকল্পের সাইট ইনচার্জ রুহুল কুদ্দুস বলেন, ‘প্রকল্পের প্রবেশ পথে একটি মেডিক্যাল ক্যাম্প বসানো হয়েছে। সেখানে প্রকল্পের নিজস্ব চিকিৎসক ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের লোকজন কর্মরত সবার নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করছেন। প্রকল্প পরিচালকের নির্দেশে বিদেশিদের হোম কোয়ারেন্টেইন পূরণের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে।’

রাশিয়ার আর্থিক ও প্রযুক্তিগত সহায়তায় দেশে প্রথম নির্মিত এই প্রকল্প ২০২৩ সালে বিদ্যুৎ উৎপাদনের কথা রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘করোনার বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করেই প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে।’

এদিকে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমানবিক শক্তি করপোরেশনের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচোভ এক বিবৃতিতে বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস জনিত পরিস্থিতিতে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সাধারণ জনগণকে জীবন ও স্বাস্থ্যকে সর্বাধিক প্রাধান্য দিয়ে জরুরি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে বলেছেন। 

রূপপুর প্রকল্পে সম্প্রতি যারা বিদেশ থেকে এসেছেন তাদেরকে প্রকল্প সাইডে প্রবেশের ব্যাপারে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। এ ধরনের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীকে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইন পালনের ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থাসহ জনসমাগম এড়িয়ে চলতে ও গ্রিনসিটি থেকে বের না হওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাংলাদেশি এক শ্রমিক বলেন, ‘বিদেশের অনেক লোক এখানে কাজ করছে। করোনাভাইরাস নিয়ে ভয়ই করে। প্রকল্পের কাজ তো বন্ধ করা হয়নি। তাই আমাদেরও কাজ করতে হচ্ছে।’

আজকের সাতক্ষীরা
আজকের সাতক্ষীরা
উন্নয়ন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর