• রোববার   ১৮ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ৫ ১৪২৮

  • || ০৬ রমজান ১৪৪২

আজকের সাতক্ষীরা

অল্প আমলে সওয়াব বেশি

আজকের সাতক্ষীরা

প্রকাশিত: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

মহান আল্লাহ তায়ালা অতি মেহেরবান। তার দয়ার কোনো শেষ নেই। অনেক সময় বান্দার কোনো ছোট আমলেও আল্লাহ তায়ালা সন্তুষ্ট হয়ে যান। এমনকি তার রহমতের সাগরে জোয়ার আসে। তিনি তখন বান্দাকে দিয়ে দেন অনেক পুরষ্কার এবং উন্মুক্ত করে দেন তার দানের ভান্ডার। তাই কোনো নেক আমল বাহ্যিকভাবে ছোট ও সহজ বলেই সে সম্পর্কে অবহেলা করা উচিত নয়।

হজরত নবী করিম (সা.) বলেছেন, কোনো সৎ কাজকেই কখনো তুচ্ছ জ্ঞান করবে না। যদিও তা হয় তোমার ভাইয়ের সঙ্গে হাসিমুখে সাক্ষাত। -সহিহ মুসলিম। কারণ এই ধরনের সহজ আমলের মধ্যেও অনেক সময় নিহিত থাকে অনেক প্রাপ্তি ও পুরষ্কার। হাদিস শরিফে এমন অনেক আমলের বর্ণনা পাওয়া যায়, যা করতে সহজ, কিন্তু এর বিশাল প্রাপ্তি ও পুরষ্কারের কথা নবী করিম (সা.) ঘোষণা করেছেন। প্রেরণা যুগিয়েছেন এসব আমলের প্রতি যত্নবান হতে। সহিহ হাদিসের আলোকে এসব আমলের সবিস্তারে আলোচনার জন্যই আমাদের এই ক্ষুদ্র প্রয়াস। 

নিয়ত শুদ্ধ করা
নিয়ত অর্থ সংকল্প। এটি মনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি আমল। প্রত্যেক কাজ, তা দ্বীনী কাজ হোক কিংবা দুনিয়াবী, শুরুতেই নিয়তকে শুদ্ধ করা কর্তব্য। সব কাজ আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য করার সংকল্পই হচ্ছে বিশুদ্ধ নিয়ত। এই নিয়ত মুমিন বান্দার ব্যক্তিগত জীবন থেকে শুরু করে রাষ্ট্রীয় পর্যায় পর্যন্ত প্রায় সকল কাজকেই নেকির কাজে পরিণত করতে পারে।

হাদিসে আছে, হজরত উমর ইবনে খাত্তাব (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি নবী করিম (সা.) কে বলতে শুনেছি, নিশ্চয়ই সব আমল নিয়তের ওপর নির্ভরশীল। আর প্রত্যেক ব্যক্তি তাই পাবে যার নিয়ত সে করবে। অতএব যে ব্যক্তি আল্লাহ ও তার রাসূলের উদ্দেশ্যে হিজরত করবে তার হিজরত আল্লাহ ও তার রাসূলের জন্যই হবে। আর যে দুনিয়া লাভের জন্য কিংবা কোনো নারীকে বিয়ের উদ্দেশ্যে হিজরত করবে তার হিজরত উক্ত বিষয়ের জন্যই হবে, যার জন্য সে হিজরত করেছিল। (সহিহ বোখারি, হাদিস- ১; সহিহ মুসলিম হাদিস- ১৯০৭)

বর্ণিত হাদিসটি অত্যন্ত গুরত্বপূর্ণ একটি হাদিস। এখানে নবী করিম (সা.) এই শিক্ষা দিয়েছেন যে, প্রত্যেক আমলের সওয়াবের জন্য নিয়ত জরুরি। শুধু আমল নয়; বরং প্রত্যেক মানুষকে তার নিয়তের ওপরই প্রতিদান দেয়া হবে। বিষয়টি বোঝানোর জন্য নবি করিম সা. হিজরতের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ আমলের কথা বলেছেন। একজন মুহাজির তার হিজরতের পূর্ণ প্রতিদান পায়। পক্ষান্তরে অন্য ব্যক্তি বাহ্যত একই আমল করার পরও বঞ্চিত হয়। এর নিগূঢ় রহস্য মাত্র তিন অক্ষরের নিয়ত শব্দের মধ্যেই নিহিত রয়েছে। যে ব্যক্তি আল্লাহ ও তার রাসূলের সাহায্যের নিয়তে হিজরত করবে তার হিজরত হবে প্রতিদানযোগ্য। আর সে পাবে আল্লাহর সন্তুষ্টি ও অশেষ সওয়াব। পক্ষান্তরে যে ব্যক্তি পার্থিব কোনো উপকার যেমন ব্যবসা-বাণিজ্য কিংবা প্রেয়সী নারীকে বিয়ে করার নিয়তে স্বজন ও স্বদেশ ত্যাগ করে বাহ্যত তা হিজরত হলেও তা হবে ব্যর্থ ও প্রতিদানের অযোগ্য। একই কষ্ট করার পরও মুহাজিরদের পুরষ্কার থেকে সে হবে বঞ্চিত।

এই হাদিস থেকে নিয়তের গুরুত্ব ও ফজিলত সম্পর্কে জানা গেল। উত্তম নিয়তের কারণে মানুষ আমলের সওয়াব পাবে পক্ষান্তরে নিয়তের ভ্রান্তি ও ভ্রষ্টতার কারণে সে হবে প্রশ্নের মুখোমুখি। নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি আল্লাহর কাছে একনিষ্ঠ মনে শাহাদাতের প্রার্থনা করবে আল্লাহ তাকে শহিদের মর্যাদা দান করবেন। যদিও সে স্বীয় বিছানায় মৃত্যুবরণ করে। (সহিহ মুসলিম, হাদিস- ১৯০৯)

আরেকটি হাদিসে তাবুক যুদ্ধের ময়দানে উপস্থিত সাহাবিদেরকে উদ্দেশ করে নবি করিম সা. ইরশাদ করেছেন, নিশ্চয়ই মদিনায় এমন কিছু মানুষ রয়েছে, (তাবুক পর্যন্ত) প্রতিটি পথে প্রান্তরে; প্রতিটি টিলা-টক্করে যারা তোমাদের সঙ্গেই ছিল। তারাও তোমাদের মতো জিহাদের সওয়াব লাভ করবে। কারণ পূর্ণ নিয়ত থাকা সত্ত্বেও অসুস্থতা বা অন্য কোনো সমস্যার কারণে তাদের জিহাদে অংশগ্রহণে বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। (সহিহ মুসলিম, হাদিস- ১৯১১)

এই উভয় হাদিস দ্বারা বোঝা যায় যে, শুধু নিয়তের আমলটির কারণে যে কোনো মহৎ ও ফজিলতপূর্ণ আমলের সওয়াব তাদের মতোই পাওয়া যাবে যারা কষ্ট-সাধনার মাধ্যমে নিজেরা এই আমলগুলো সম্পাদন করেছে। অথচ সে ব্যক্তি পূর্ণ ইখলাসের সঙ্গে ওই আমলের শুধু নিয়তই করেছিল। আর কিছুই করতে পারেনি। অতএব যে কোনো উত্তম ও কল্যাণমূলক কাজের জন্য ইখলাসের সঙ্গে বেশি বেশি নিয়ত করা উচিত। সঙ্গে সঙ্গে বেঁচে থাকা উচিত ভ্রষ্ট নিয়ত এবং ভ্রান্ত লক্ষ্য মনে পোষণ করা থেকে। নবী করিম সা. ইরশাদ করেছেন, কিয়ামতের দিন সর্বপ্রথম একজন শহিদকে ডাকা হবে এবং তার ওপর আল্লাহর দেয়া নেয়ামতগুলো একে একে স্মরণ করানো হবে।

অতঃপর জিজ্ঞাসা করা হবে, তুমি কি এসব নেয়ামত ভোগ করেছিলে? সে স্বীকার করে নিবে। বলবে, হ্যাঁ, এসব নেয়ামত আমি ভোগ করেছি। তখন আল্লাহ বলবেন, ওই সব নেয়ামতের শোকরিয়ায় তুমি কী আমল করেছ? সে বলবে, আমি আপনার রাস্তায় লড়াই করে শাহাদত বরণ করেছি। আল্লাহ বলবেন, তুমি মিথ্যা বলছ; তুমি তো এই জন্য লড়াই করেছ, যেন তোমাকে বীর উপাধি দেয়া হয়। তা তো দেওয়া হয়েছে। অতঃপর আল্লাহতায়ালার নির্দেশে তাকে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে। এরপর দ্বিতীয় ব্যক্তিকে আনা হবে, যে নিজে ইলম শিখেছে, কোরআন পড়েছে এবং অপরকে শিক্ষা দিয়েছে। তাকেও পূর্ববর্তী ব্যক্তির মতো আল্লাহতায়ালার নেয়ামতগুলো স্মরণ করানো হবে এবং সে তা স্বীকার করে নিবে।

আল্লাহতায়ালা প্রশ্ন করবেন, এর প্রতিদানে তুমি কী আমল করেছ? সে বলবে, আমি তোমার জন্য ইলম শিখেছি, কোরআন পড়েছি এবং অপরকে শিখিয়েছি। আল্লাহ বলবেন, তুমি মিথ্যা বলেছ; বরং তুমি তো এই জন্য ইলম শিখেছ যাতে লোকে তোমাকে আলেম বলে। তা তো বলা হয়েছে। অতঃপর তাকে আল্লাহর নির্দেশে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে।

তৃতীয় আরেক ব্যক্তিকে হাজির করা হবে যে ছিল বিত্তশালী। যাকে আল্লাহতায়ালা প্রচুর সম্পদ ও ঐশ্বর্য দান করেছিলেন। পূর্বোক্ত দুই ব্যক্তির মতো তাকেও আল্লাহর নেয়ামতের কথা স্মরণ করিয়ে প্রশ্ন করা হবে যে, তুমি কী আমল করেছ? সে বলবে, মাওলা! ব্যয়ের জন্য তোমার পছন্দনীয় এমন কোনো খাত বাদ যায়নি, যে খাতে তোমারই সন্তুষ্টির জন্য আমি দান করিনি। আল্লাহতায়ালা বলবেন, তুমি মিথ্যা বলেছ। বরং তুমি তা করেছ শুধু এ জন্যই যাতে লোকেরা তোমাকে দানবীর উপাধি দেয়। তা তো দেয়া হয়েছে। অতঃপর আল্লাহর নির্দেশে তাকেও জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে। -সহিহ মুসলিম, হাদিস- ১৯০৫

এই হাদিস থেকে বোঝা যায় যে, সৎ কাজ করার পরও শুধু নিয়ত বিশুদ্ধ না থাকায় কী নির্মম ও করুণ পরিণতি!বস্তুত সব কাজে নিয়ত বিশুদ্ধ রাখা জরুরি। ইখলাসের সঙ্গে কোনো সৎ কাজের জন্য পরিশুদ্ধ নিয়ত করলে কোনো কারণে এ কাজটি করতে না পারলেও শুধু নিয়তের কারণে ওই কাজের ওপর আমল করার সওয়াব পাওয়া যাবে। আবার ভ্রষ্ট নিয়তের কারণে বড় ধরনের উত্তম ও নেক আমলেরও সামান্য মূল্য থাকবে না।

আজকের সাতক্ষীরা
আজকের সাতক্ষীরা